মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪, ফাল্গুন ২১ ১৪৩০

Aloava News24 | আলোআভা নিউজ ২৪

ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি হবে বাংলাদেশ

অর্থনীতি ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৪:৪৪, ১৪ মার্চ ২০২৩

ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি হবে বাংলাদেশ

ছবি: ইন্টারনেট

দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের জন্য রয়েছে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল। জন্য বিনিয়োগে বিশ্বের সবচেয়ে উপযোগী দেশ এখন বাংলাদেশ। আর বিনিয়োগ কর্মযজ্ঞ চালু হলে ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতিতে পরিণত হবে বলে দাবি করেছেন এফবিসিসিআইর সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। গতকাল সোমবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) তিন দিনব্যাপী বাংলাদেশ বিজনেস সামিটের সমাপনী সংবাদ সম্মেলনে তিনি মন্তব্য করেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, এদেশে বিনিয়োগ সফল হবে- সম্মেলনে এটিই প্রতীয়মান হয়েছে। এটা বুঝেই বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী, সরকারের প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী উদ্যোক্তারা বিজনেস সামিটে এসেছেন। এর মাধ্যমে সামিট সফল হয়েছে। গত ১১ মার্চ সামিট উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, গ্যাস, বিদ্যুৎ, জ্বালানি সংকট নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আমাদের অর্থনীতি ৪৭০ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। এখন সরকার ব্যবসাবান্ধব। পদ্মা সেতু চালু করেছে। বড় বড় অবকাঠামোর কাজ চলছে। ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে। এই কর্মযজ্ঞ বলে দেয় ২০৪১ সালে বাংলাদেশ সাড়ে ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি হবে। পরিসংখ্যানে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, সামিটে কৃষি পণ্যের ওপর বেশি জোর দেয়া হয়েছে। খাত প্রসারে প্রধানমন্ত্রী আগ্রহী। কৃষি পণ্যকে আরও বহুমুখী করে রপ্তানির বাজার সম্প্রসারণে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইর সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু, সহসভাপতি সালাউদ্দিন আলমগীর, এম মোমেন, আমীন হেলালী, হাবিবুল্লাহ ডন, এম রাজ্জাক খান রাজ এবং বাংলাদেশ পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান বিশ্বব্যাংকের সাবেক সিনিয়র অর্থনীতিবিদ . মাসরুর রিয়াজ।

এফবিসিসিআইর ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত বিজনেস সামিটের অংশীদার হিসেবে কাজ করছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)

এর বিভিন্ন কৌশলগত বিষয়ে প্লেনারি সেশন, ১৪টি প্যারালাল সেশন, বিজনেস টু বিজনেস মিট, নেটওয়ার্কিং সেশন, একটি ওপেন হাউস রিসেপশন এবং আন্তর্জাতিক প্রতিনিধিদের জন্য গাইডেড ট্যুরের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় সামিটে। এতে যুক্তরাজ্য, সৌদি আরব, চীন, ভুটান, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ সাতটি দেশের মন্ত্রী, ১২টি বহুজাতিক কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ১৭টি দেশের ৩০০টিরও বেশি বিদেশি বিনিয়োগকারী প্রতিনিধি ব্যবসায়ী নেতা অংশ নেন।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়