মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর ২০২২, অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৯

Aloava News24 | আলোআভা নিউজ ২৪

ঈদ আনন্দে বানভাসি ৫ হাজার মানুষের পাশে প্রয়াস গ্রুপ

মো. সাহিদ আহমেদ

প্রকাশিত: ১০:২৫, ১৩ জুলাই ২০২২

আপডেট: ১০:৩০, ১৬ জুলাই ২০২২

ঈদ আনন্দে বানভাসি ৫ হাজার মানুষের পাশে প্রয়াস গ্রুপ

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে বানভাসিদের ঈদের আনন্দ উদযাপনে আবারও পানিবন্দি মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে প্রয়াস গ্রুপ।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে কয়েক লক্ষ মানুষ পানি বন্দি জীবন যাপন করছে। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে বানভাসিদের ঈদের আনন্দ উদযাপনে আবারও পানিবন্দি মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে প্রয়াস গ্রুপ।

মুসলমানদের জন্য ঈদের প্রভাব অনস্বীকার্য। এ ছাড়া মুসলিমপ্রধান দেশ হলেও বিভিন্ন ধর্মের মানুষের বসবাস বাংলাদেশে। রয়েছে ধর্মীয় সম্প্রীতির সুপ্রাচীন ঐতিহ্য, তাই ঈদের আনন্দ সকল ধর্মের মানুষকেই ছুঁয়ে যায়। কিন্তু এবার ঈদের আগমুহূর্তে দেশে বন্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলায় বন্যা তার পূর্বের সব রেকর্ড অতিক্রম করে বড় কঠিনভাবে আঘাত হেনেছে। বিশেষ করে সুনামগঞ্জ জেলায় উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বেশকয়েকটি উপজেলা। যার মধ্যে দিরাই-শাল্লা উপজেলা অন্যতম। এমন সময় সুনামগঞ্জের কৃতি সন্তান, প্রয়াস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চেয়ারম্যান জনাব প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার বানভাসি মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান।

উজানের পানিতে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে নতুন পোশাকসহ আর্থিকভাবে সহায়তা প্রদান করেন জনাব প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার

শুক্রবার (৮ জুলাই) থেকে ঈদের পরদিন সোমবার (১১ জুলাই) অবদি টানা চারদিন বানভাসি মানুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ যোগ করতে আবারও চলে ৫ হাজার পরিবারের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গী ও বাচ্চাদের জন্য পোশাক বিতরণ কর্মসূচি।

এ সময় তারা সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা ও শাল্লা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় করে এ ঈদ উপহার পৌছে দেন। এ ঈদ উপহার সামগ্রী সকল সাধারণ মানুষের কাছে পৌছে দিতে সহায়তা করেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, আমাদের রাজানগর ইউনিয়নের মানুষের জন্য প্রয়াস গ্রুপের চেয়ারম্যান জনাব প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার যা করেছেন এতে আমি ও আমার ইউনিয়নের সকল মানুষ কৃতজ্ঞ।

এদিকে কর্মসূচির এ চারদিন ইঞ্জিন চালিত নৌকায় হাওর পাড়ি দিয়ে দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নের মির্জাপুর, আনোয়ারপুর, সেচনি, খাঘাউরা, রফিনগর,মাছিমপুর ,স্বজনপুর, কিত্তাগাঁও, রামজীবনপুর, সাদিরপুর, গাজিয়ারগাঁও, চরনারচর ইউনিয়নের মাহতাবপুর, এলংজুড়ি, পেরুয়া ও ভাটিপাড়া ইউনিয়নসহ অন্যান্য গ্রামে বানভাসি মানুষের মাঝে ঈদের পোষাক বিতরণ শেষে শাল্লা উপজেলার আটগাঁও,বাজারকান্দি গ্রামেও দিনব্যাপী এ কার্যক্রম চলে।

দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শৈলেন্দ্র কুমার তালুকদার জানান, প্রয়াস গ্রুপের চেয়ারম্যান জনাব প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার আর্তমানবতার কাজে নিয়োজিত। ঝড়-বৃষ্টি বজ্রপাত উপেক্ষা করে প্রতিটা মানুষের ঘরে ঘরে পাড়ায় পাড়ায় নিজে সাহায্য সহযোগিতা করে আসছেন। আমি আমার ইউনিয়নবাসির পক্ষ থেকে ওনার প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং ওনার প্রয়াস গ্রুপের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি। 

এছাড়া কাঠফাটা রোদে পুড়ে ফেরার পথে জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়নেও পোশাক বিতরণ করেন তারা।

এরআগে, প্রয়াস গ্রুপ ৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন।  সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই ও শাল্লা উপজেলার বানভাসিদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য, মেডিকেল সামগ্রী, বিশুদ্ধ পানিসহ  খাবার স্যালাইন বিতরণ করেন তারা। একইসঙ্গে প্রায় ৫ হাজার পরিবারকে আর্থিক সহায়তাও দিয়েছে প্রয়াস গ্রুপের সহ-প্রতিষ্ঠান হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রয়াস গ্রুপ তথা হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মি. প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার জানান, ‘আমরা যারা নিরাপদ জায়গায় মহাসুখে বসে রয়েছি তারা বুঝতে পারব না বানভাসি মানুষের দুঃখ ঠিক কতটা গভীর হতে পারে। এবার কিছু মানুষের ঈদের আনন্দ পুরোপুরি মাটি হয়ে গেছে। কারণ, তারা হয়তো ঈদের আগে নিজেদের ঘরেও ফিরতে পারবে না। যারা ঘরে ফিরতে পেরেছেন। তাদের কষ্টের পরিমাণও সামান্য নয়। ঘরে খাবার নেই, রয়েছে নিরাপদ পানির তীব্র সংকট। যেখানে মানুষ মৌলিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত রয়েছে সেখানে তারা ঈদের আনন্দ উপভোগ করবে কীভাবে? অনেক কৃষক হয়তো ভেবে রেখেছিলেন, এবার জমিতে যে ফসল ফলবে সেটা বিক্রি করে পশু কোরবানি দেবে এবং ঈদের সময়ে খরচ করবে। কিন্তু বন্যার পানি ক্ষেতের সমস্ত ফসল ধ্বংস করে দিয়েছে। এই অবস্থায় তাদের দুঃখ কতটা গভীর হতে পারে সেটা আমরা অনুমানও করতে পারি না।

প্রদ্যুৎ কুমার আরও বলেন, এখন সময় এসেছে বানভাসি মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ানোর। আমাদের অনুভব করতে হবে তাদের দুঃখ। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বানভাসি মানুষকে সাহায্যের জন্য কাজ শুরু হয়েছে। সরকারি এবং বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা থেকে ত্রাণ বিতরণও চলছে। মানুষ সত্যিকারার্থে আজ বানভাসি মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি নিজেও হাওরের সন্তান। এ হাওরে আমার বেড়ে ওঠা। সেই টান থেকে হাওরের মানুষের এ দুঃসময়ে সামর্থ অনুযায়ী পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আজকে আমরা যদি তাদের পাশে এসে দাঁড়াই, তাদের দিকে ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দিই তাহলেই তাদের মুখে হাসি ফুটে উঠবে। ঈদের সময় আমরা যেমন আনন্দ উপভোগ করব তেমনি চেষ্টা করব, সেই আনন্দ যেন তাদেরও স্পর্শ করতে পারে। 'হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশন' সর্বদা মানুষের পাশে ছিল ভবিষ্যৎতেও থাকবে।

এদিকে প্রয়াস গ্রুপের পরিচালক রূপক রঞ্জন তালুকদার বলেন, বানভাসিদের সাথে আমরা ঈদ উদযাপন করছি। খুব ভালো লাগছে, সত্যি বলতে এমন সময়ে এ মানুষগুলোর পাশে থেকে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নিতে পারার মধ্যে আনন্দ অনেক। আমরা এর আগেও বন্যার্থ মানুষের পাশে ছিলাম। ভবিষ্যৎতেও পাশে থাকবো।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়