রোববার ২৩ জুন ২০২৪, আষাঢ় ৯ ১৪৩১

Aloava News24 | আলোআভা নিউজ ২৪

ঘুরে আসুন প্রকৃতির কন্যা জাফলং

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৯:৫৯, ২৩ অক্টোবর ২০২২

ঘুরে আসুন প্রকৃতির কন্যা জাফলং

ছবিঃ সংগৃহীত

বাংলাদেশে জাফলং (Jaflong) প্রকৃতির কন্যা হিসাবেই বেশ পরিচিত। সিলেট জেলার দর্শনীয় স্থান গুলোর মধ্যে সবার সবচেয়ে বেশি পছন্দ জাফলং।  সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ভারতের মেঘালয় সীমান্ত ঘেঁষা প্রকৃতির দানে রুপের এক পসরা সাজিয়ে আছে জাফলং। পাথরের উপর দিয়ে বয়ে চলা পিয়াইন নদীর স্বচ্ছ পানির ধারা, ঝুলন্ত ডাউকি ব্রিজ, উঁচু উঁচু পাহাড়ে সাদা মেঘের খেলা জাফলংকে করেছে অনন্য সৌন্দর্যের অধিকারী। একেক ঋতুতে জাফলং একেক রকম রুপের প্রকাশ ঘটায়, যা পর্যটকদেরকে ভ্রমণের জন্য সারাবছরই আগ্রহী করে রাখে।   

জাফলং যাওয়ার উপায়-

জাফলং যেতে হলে আপনাকে আসতে হবে চায়ের দেশ সিলেটে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা উপায়ে সিলেট আসা যায়। ঢাকা হতে বাস, ট্রেন আকাশপথে সিলেট যাওয়া যায়। চলুন জেনে নিন বিস্তারিত।

জাফলং কোথায় থাকবেন-

সাধারণত ভ্রমণকারীদের জাফলংয়ে থাকার খুব একটা জায়গা নেই বললেই চলে। রাত যাপন করতে চাইলে আপনার সিলেট শহরে আসতে হবে। সিলেটে থাকলে আর একটা সুবিধা হয় তাহলো সিলেট থেকে আরও বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন চা বাগান দেখতে যাওয়া যায়। সিলেটের বেশির ভাগ হোটেল শাহজালাল মাজারের আশেপাশেই অবস্থিত। দরগাহাট থেকে তালতলা আম্বর্খানা, কদমতলী, লামাবাজার, পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের আবাসিক হোটেল আছে এখানে, আপনি অনেক কম খরচে থাকতে পারবেন এবং বেশি টাকা দিয়েও থাকতে পারবেন আনুমানিক ধারণা ৫০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে

জাফলং খাওয়া-দাওয়া করবেন যেভাবে-

বেশ কিছু জায়গায় খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা আছে তার মধ্যে সীমান্ত ভিউ রেস্টুরেন্ট, জাফলং পর্যটন রেস্টুরেন্ট উল্লেখযোগ্য এবং যদি আরো ভালো হোটেলে আপনি খেতে চান এখানে জিন্দাবাজার এলাকায় কিছু হোটেল আছে নাম হচ্ছে পানছি পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্ট সুলভ মূল্যে পছন্দমত সুন্দর সুন্দর খাবার এখানে পাবেন। এদের এখানে বিভিন্ন ধরনের খিচুড়ি, মাংস, ভর্তা আপনাকে রান্না করে খাওয়াবে। এখানে সকালে  নাস্তার ব্যবস্থা খুব সুন্দর আছে।৫০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে সুন্দর নাস্তা করতে পারবেন আর দুপুর, রাতে স্বাভাবিক ভাবে যদি খেতে চান  তাহলে ১৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে সুন্দর খাবার পাবেন।

জাফলং দর্শনীয় জায়গা সমূহ-

তামাবিল খুব সুন্দর একটি জায়গা, তারপর আছে লালাখাল, তারপর জৈন্তাপুর, তারপর সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণা, মায়াবী ঝর্ণা, সংগ্রামপুঞ্জি চা বাগান, ডিবির হাওর, শাপলা বিল ,এগুলো সব জায়গায় খুব সুন্দর। আপনি এগুলা ভ্রমণ করে আপনার মনটাকে প্রফুল্ল বানাতে পারেন, অসাধারণ দেখতে এসমস্ত দৃশ্যগুলো।

জাফলং ভ্রমণ এর কিছু নিয়ম কানুন-

# যেটাই কিনুন, যেটাই খেতে চান না কেন অবশ্যই আগে তার দাম দর করে নিন, দামদর না করলেই ঝামেলায় পড়ে যাবেন।

# কয়েকজন মিলে গেলে খরচটা কম হয়। আনন্দটাও বেশি হয়, ভালো লাগে, একা না গিয়ে কয়েকজন মিলে একটি গ্রুপ করে যেতে পারেন।

# যেহেতু জাফলং দেশের শেষপ্রান্ত অর্থাৎ সীমানা ঘেঁষে অবস্থিত, সীমান্ত এলাকা যে সমস্ত নিয়ম কারণ আছে সেগুলো সব কিছু মেনে চলুন।

# যে কোন গাড়িতে উঠার আগে অবশ্যই দাম দর করে উঠুন।

# পানিতে নামার সময় অবশ্যই সাবধানে এবং সতর্কতার সহিত নামতে হবে। ওখানে সব সময় পাথর উত্তোলনের কাজ চলে তাই জায়গাটা বেশ গভীর।

# আমরা আপনাদের যথাশাদ্ধ গাইড করার চেষ্টা করেছি। কোন কারণেই আমাদের ওয়েবসাইট দায়ী থাকবে না।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়