রোববার ২৩ জুন ২০২৪, আষাঢ় ৯ ১৪৩১

Aloava News24 | আলোআভা নিউজ ২৪

আলোচিত সৌরভ হত্যাকাণ্ড নিয়ে জট খুললো!

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫:৪৭, ৪ জুন ২০২৪

আলোচিত সৌরভ হত্যাকাণ্ড নিয়ে জট খুললো!

ছবি: ইন্টারনেট

ময়মনসিংহ সদরের মনতলা ব্রিজের নিচ থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর লাগেজ বন্দি চার খণ্ড লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই তিনজনের মধ্যে ওমর ফারুকের চাচা ইলিয়াস উদ্দিন রয়েছে। হত্যাকাণ্ডের পর লাশ গুমে ব্যবহৃত প্রাইভেট কারও উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত শিক্ষার্থীর নাম ওমর ফারুক সৌরভ (২৩)। তার গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার তারাটি গ্রামে। তার বাবার নাম ইউসুফ আলী। তিনি চাকরি করেন ডাক বিভাগে। মা মাহমুদা আক্তার পারুল গৃহিণী। তার পরিবার স্থায়ীভাবে ঢাকায় মতিঝিলে বসবাস করেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, সৌরভের সঙ্গে দীর্ঘদিন প্রেম চলছিল তার চাচাত বোন ইভার। উভয়ই পরিবারকে না জানিয়ে ১২ মে ঢাকার একটি বাসায় তারা বিয়ে করেন। এর পর ইভা ময়মনসিংহের নিজ বাসায় চলে আসেন। একপর্যায়ে সৌরভের পরিবার মেনে নিলেও ইভার পরিবার মানেনি। সৌরভকে ডিভোর্স দিতেও চাপ দেয়া হয়। তবে সৌরভ স্ত্রীকে ছাড়া থাকতে নারাজ। উপায় না পেয়ে ১৬ মে ইভাকে জোর করে কানাডায় পাঠিয়ে দেয় ইভার পরিবার। এরপর দুই পরিবারের দ্বন্দ্ব আরও প্রকট হয়।

এর মধ্যেই ইভার বাবা ইলিয়াস আলী আপন বড় ভাই সৌরভের বাবা ইউসুফ আলীকে হুমকি-ধমকি দিচ্ছিলেন।

এদিকে, সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ জানায়, তিন বছর আগে ইসরাত জাহান ইভার বিয়ে হয় আব্রাহাম নামে একজনের সঙ্গে। তিনি বর্তমানে কানাডায় স্টুডেন্ট ভিসায় পড়াশোনা করছেন। তার সঙ্গে ডিভোর্সও হয়নি। কিন্তু সম্প্রতি সৌরভ গোপনে তার চাচাতো বোনকে বিয়ে করে। এই বিষয়টি ইভার পরিবার ভালোভাবে নেয়নি। গত জুন সৌরভ ময়মনসিংহে আসে। এরপর পরিকল্পনা মাফিক গোয়ালকান্দিতে চাচার বাসায় মাথায় আ/ঘা/ত করে সৌরভকে হত্যা করা হয়। এরপর চাপাতি দিয়ে দেহ থেকে মাথা আলাদা করে।

গত জুন সকালে ময়মনসিংহ সদরের সীমান্তবর্তী মনতলা ব্রিজের নিচে সুতিয়া নদী থেকে সৌরভের চার টুকরো করা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সুতিয়া নদী থেকে কালো রঙের একটি ট্রলিব্যাগ থেকে তিন টুকরো এবং পাশেই একটি বাজারের ব্যাগে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় মাথা উদ্ধার করা হয়।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়