সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, মাঘ ১৭ ১৪২৯

Aloava News24 | আলোআভা নিউজ ২৪

দিরাইয়ে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মতিথিতে হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশনের শীতবস্ত্র-পুরস্কার বিতরণী

দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:৪৮, ১৬ জানুয়ারি ২০২৩

আপডেট: ২০:০৫, ১৬ জানুয়ারি ২০২৩

দিরাইয়ে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মতিথিতে হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশনের শীতবস্ত্র-পুরস্কার বিতরণী

দিরাইয়ের রামকৃষ্ণ মিশনে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে শনিবার (১৪ জানুয়ারি) হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম প্রাঙ্গনে বিশ্বখ্যাত মনীষী ও প্রাচ্যের নবজাগরণের যুবনায়ক স্বামী বিবেকানন্দের ১৬১তম জন্মতিথি উৎসবে শীতবস্ত্র ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ উপলক্ষে শনিবার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সকাল সাড়ে সাতটায় পৌরশহরের বিভিন্ন সড়কে জন্মতিথির মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচির সূচনা হয়।

চিত্রাঙ্কন, কবিতা আবৃত্তি, গীতা পাঠ সহ বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগিতাসহ বিকেল ৩টায় দিরাই রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম প্রাঙ্গণে স্বামী বিবেকানন্দ যুব পরিষদ দিরাই উপজেলার উদ্যোগে ‘স্বামী বিবেকানন্দ ও বিশ্বমানবতাবাদ’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পবিত্র গীতা পাঠসহ স্থানীয় ও আগত জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পীবৃন্দের যৌথ পরিবেশনায় ঐতিহ্যবাহী ধামাই গান ও ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে স্বামী বিবেকানন্দ যুব পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ পংকজ কান্তি রায়ের সভাপতিত্ব, আশীষ তালুকদার এর সঞ্চালনায় ‘স্বামী বিবেকানন্দ ও বিশ্বমানবতাবাদ’ শীর্ষক প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিরাই মজলিশপুর রামকৃষ্ণ সেবাশ্রমের সাধারণ সম্পাদক স্বামী ইষ্টানন্দজী মহারাজ।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান, পৌর মেয়র বিশ্বজিৎ রায় ,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রয়াস গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার, রামকৃষ্ণ সেবাশ্রমের সভাপতি  প্রসেনজিৎ তালুকদার , চরনারচর ইউপি চেয়ারম্যান পরিতোষ রায়, করিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান লিটন চন্দ্র দাস, রামকৃষ্ণ সেবাশ্রমের সারদা সংঘের সভাপতি অনিন্দিতা রায় চৌধুরী প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে হাওর প্রয়াস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রদ্যুৎ কুমার তালুকদার বলেন, স্বামী বিবেকানন্দ বলেছেন, ধর্ম মানুষকে মানুষে রূপান্তরিত করে। ধর্ম মানুষকে মানুষ হিসেবে তৈরি করে। অনেকেই বলে ধর্মের কারনে আমাদের মধ্যে বিভেদ তৈরি হয়। আসলে যারা ধর্ম জানে, যাদের ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান আছে। তারা কখনও ধর্ম নিয়ে বিভেদ সৃষ্টি করেনা। যেমন আমাদের হযরত মুহাম্মদ বলেন, বা আমাদের স্বামী বিবেকানন্দ বলেন বা যিশুখ্রিস্ট, বুদ্ধদেব বলেন ওনারা ধর্ম জানতেন বিঁধায় ধর্মকে উপলদ্ধি করতেন। ওনারা সব সময় মানুষের মঙ্গলই করে গেছেন। কখনও অসহিষ্ণু হননি। আমাদের ধর্ম সম্পর্কে জেনে যদি আমরা ধর্ম করি। তাহলে আমি মনে করি, সবার জন্য দান করতে পারবেন। মন বড় হয়ে যাবে। মনের প্রাপ্তি বড় হয়ে যাবে।

মানবসেবা শুধুমাত্র আমি শীতবস্ত্র বিতরণ করছি তাই নয়। আমার বাড়িতে বৃদ্ধ মা আছে বাবা আছে। আমি যদি তাদের সেবা করি। আমার ছেলে যদি তার সেবা করে, সেটাই মানব সেবা। আমি যদি রাস্তায় একজন অন্ধকে রাস্তা পার করে দেই; সেটাও একটা সেবা। আমি যদি কাউকে নৌকায় উঠতে পারছেনা তাকে নৌকায় তুলে দেই সেটাও একটা সেবা। সেবা করলে মন বড় হয়। সেবা করলে কখনই কমবেনা। তাই আমাদের সকলকে সকলের যায়গা থেকে সেবার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের জন্য লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা ও বিনোদন আবশ্যক। তবে লেখাপড়াকেই প্রাধান্য দিতে হবে।

পরিশেষে , রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম প্রাঙ্গনে স্বামী বিবেকানন্দের ১৬১তম জন্মদিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভা শেষে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র ও গীতা পাঠ, আবৃত্তি ও কুইজ, চিত্রাঙ্কন, নৃত্য, ও সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়